শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০৯:১৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
রোববার যে সময়ে আঘাত হানবে ঘূর্ণিঝড় ‘রিমাল’ গ্রুপ ‘সি’: চমকে দিতে চায় উগান্ডা-পাপুয়া নিউগিনি এফএ কাপের ফাইনালে ম্যানচেস্টার ডার্বি উপকূলীয় এলাকায় লঞ্চ চলাচল বন্ধের নির্দেশ আনারের মাংসের ‘কিমা’ বানিয়ে কমোডে ফ্ল্যাশ করে খুনীরা আনারের মরদেহের পাশে বসেই খাবার খান হত্যাকারীরা বিশ্বজুড়ে গড় আয়ু কমেছে প্রায় ২ বছর : ডব্লিউএইচও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী আসছে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত টাকা পাচারের অভিযোগ দেরিতে আসায় ব্যবস্থা নিতে বেগ পেতে হচ্ছে: দুদক পাকিস্তানে মূল্যস্ফীতি বাড়ায় হিমশিম খাচ্ছে চাকরিজীবীরাও রাফা-গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত ৬০ এমপি আনারকে আগেও দুবার খুনের পরিকল্পনা হয়: ডিবি দুর্নীতি প্রশ্রয়দাতাদেরও বিচার করতে হবে : ১২ দলীয় জোট ‘বিদ্যুৎ-পানি ব্যবহারে সাশ্রয়ী হোন’

আফগানিস্তানে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ফের খুলে দেওয়া হলেও নারীরা নিষিদ্ধ

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : মার্চ ৬, ২০২৩
আফগানিস্তানে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ফের খুলে দেওয়া হলেও নারীরা নিষিদ্ধ

আফগানিস্তানে শীতকালীন ছুটির পর দেশটির বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ফের খুলে দেওয়ার পর পুরুষ ছাত্ররা তাদের ক্লাসে ফিরে গেলেও নারী শিক্ষার্থীদের প্রবেশে তালেবান কর্তৃপক্ষ নারীদের প্রবেশে নিষেধাঞ্জা দেয়। খবর এএফপি’র।
২০২১ সালের আগস্টে তালেবান ক্ষমতায় ফিরে আসার পর থেকেই নারীদের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞাগুলোর অন্যতম হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ায় বাধা সৃষ্টি করা। তালেবান সরকারের এমন পদক্ষেপের ফলে মুসলিম বিশ্বসহ বিশ্বব্যাপী ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।
আফগানিস্তানের মধ্যাঞ্চলীয় ঘোর প্রদেশের রাহেলা (২২) বলেন, ‘আমরা বাড়িতে থাকলেও ছেলেদের বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়া দেখে আমাদের হৃদয় ভেঙ্গে যাচ্ছে।’
তিনি বলেন, ‘এটি নারীদের প্রতি লিঙ্গ বৈষম্য কারণ, ইসলাম আমাদের উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের অনুমতি দিয়েছে। তাই আমাদের উচ্চ শিক্ষা গ্রহণে কারো বাধা দেওয়া উচিত নয়।’
তালেবান সরকার নারীরা কঠোর পোষাক কোড এবং ক্যাম্পাসে আসা-যাওয়ার ক্ষেত্রে একজন পুরুষ আতœীয় সাথে থাকার প্রয়োজনীয়তা উপেক্ষা করার অভিযোগে নারী শিক্ষার্থীদের অভিযুক্ত করার পর তাদের ওপর এমন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।
আফদগানিস্তানের অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতোমধ্যে নারী ও পুরুষদের জন্য আলাদা প্রবেশ পথ এবং শ্রেণী কক্ষ চালু করা হয়েছে। সেইসাথে দেশটিতে নারী শিক্ষার্থীদের কেবলমাত্র মহিলা অধ্যাপক বা বয়স্ক পুরুষদের দ্বারা পড়ানোর অনুমতি দেওয়া হয়েছে।
তালেবানের বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা বলেছেন, নারী শিক্ষার উপর নিষেধাজ্ঞা অস্থায়ী। তবে এক্ষেত্রে বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি সত্ত্বেও তারা মেয়েদের জন্য মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলো ফের খুলে দিতে ব্যর্থ হয়েছে।
এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার পেছনে তাদের অজুহাত হলো অর্থের অভাব এবং ইসলামের বিধান অনুযায়ী সিলেবাস পুনরায় সাজানোর জন্য আরো সময় প্রয়োজন।
এদিকে দেখা যাচ্ছে, ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে তালেবান কর্তৃপক্ষ নারীদের জনজীবন কুন্ঠিত করে ফেলে।


এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ