রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ১১:১৫ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
আ.লীগ জনগণের কাঁধে চেপে বসেছে: জিএম কাদের হামাসের অভিযানে আরও ১৫ ইসরাইলি সেনা নিহত বাংলাদেশ ব্যাংকে কি তাহলে ঋণখেলাপিরা ঢুকবে, প্রশ্ন রিজভীর বিএনপি নেতা ইশরাক কারাগারে উপজেলা নির্বাচনে ব্যবসায়ী প্রার্থীদের দাপট অক্ষুণ্ণ: টিআইবি বাজারে থাকা এসএমসি প্লাসের সব ড্রিংকস প্রত্যাহারের নির্দেশ ভ্যাট বসলে মেট্রোরেলের সুনাম নষ্ট হবে : কাদের জাতীয় এসএমই পুরস্কার-২০২৩ পেলেন ৭ উদ্যোক্তা তরুণদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী পঞ্চম বাংলাদেশি হিসেবে বাবর আলীর এভারেস্ট জয় ঝুঁকিতে ৪৫ হাজার কোটি রুপির ভারতীয় মসলার বাজার যুদ্ধের মধ্যেই ইসরায়েলের সরকারে ভাঙনের সুর জীবন বাঁচাতে রাফা ছেড়েছেন ৮ লাখ ফিলিস্তিনি : জাতিসংঘ শরণার্থী শিবিরে ইসরায়েলি হামলা, নিহত অন্তত ১৭ রাজা চার্লসের চেয়েও বেশি সম্পদ ঋষি সুনাকের

আ.লীগের প্রচেষ্টায় দেশের মানুষের ভাগ্য ফিরেছে : শেখ হাসিনা

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : ডিসেম্বর ২৫, ২০২২
আ.লীগের প্রচেষ্টায় দেশের মানুষের ভাগ্য ফিরেছে : শেখ হাসিনা

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ এ দেশের জনগণের জন্য কাজ করে এবং আওয়ামী লীগের প্রচেষ্টায় বাংলাদেশের মানুষের আজ ভাগ্য ফিরে এসেছে। প্রথমবার সরকার যখন গঠন করি, আমাদের সিদ্ধান্ত ছিল কেউ কুঁড়ে ঘরে থাকবে না। ‍আর এখন আমরা আধাপাকা ঘর তৈরি করে দিচ্ছি।’

আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত কমিটি গঠনের পরে গণভবনে নেতাকর্মীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে আজ রোববার দুপুরে শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আওয়ামী লীগ এ দেশের জনগণের জন্য কাজ করে এবং আওয়ামী লীগের প্রচেষ্টায় বাংলাদেশের মানুষের আজ ভাগ্য ফিরে এসেছে। প্রথমবার সরকার যখন গঠন করি, আমাদের সিদ্ধান্ত ছিল কেউ কুঁড়ে ঘরে থাকবে না। ‍আর এখন আমরা আধাপাকা ঘর তৈরি করে দিচ্ছি। দয়া করে আপনারা আপনাদের এলাকায় খোঁজ নেবেন। রাজনৈতিক নেতা হিসেবে এটা আপনাদের দায়িত্ব যে, আপনার এলাকায় কোনো ভূমিহীন পরিবার বাদ পড়ল কি না।’

দশম বারের মতো দলের সভাপতি নির্বাচিত হওয়া প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমার মনে হয় এতবার একটা পার্টির দায়িত্বে থাকা ঠিক না। তারপরেও যেহেতু এখন সারা বিশ্বব্যাপী একটা দুঃসময় চলছে, এ জন্যেই আমি মানা করিনি। কিন্তু আমার বয়স হয়েছে, এটাও মনে রাখতে হবে।’

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘সেই ৪৯ সালে প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বারবার আওয়ামী লীগের ওপর আঘাত এসেছে। একটা বাড়ির বাবা যদি জেলে যায়, সে পরিবারের যে কী কষ্ট হয়…আমরা নিজেরা তো ভুক্তভোগী, আমরা তো জানি। আমরা আজকে ১৪ বছর ক্ষমতায় আছি। কাজেই আমাদের নেতাকর্মীরা, তাদের পরিবার-পরিজন যেন ভালো থাকে। আর সেই সঙ্গে বাংলার আপামর জনগোষ্ঠী।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটা ঠিক সংগঠন বলতে সারা দেশে আওয়ামী লীগই আছে। আমরা তো মাটি ও মানুষ থেকে গড়ে ওঠা সংগঠন। আর বিএনপি-জাতীয় পার্টি এগুলো তো অবৈধভাবে সংবিধান লঙ্ঘন করে ক্ষমতা দখলকারী একজন মিলিটারি শাসকের পকেট থেকে বের হওয়া। এরা ভাসমান, কাজেই এদের দায়-দায়িত্বটা জনগণের ওপর নেই। যদিও তারা দাবি করে অনেক বছর ক্ষমতায়। কিন্তু ক্ষমতায় থেকেই নিজেদের ভাগ্য গড়েছে, বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য গড়েনি।’

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘আওয়ামী লীগের কাজই হচ্ছে জনগণের ভাগ্য গড়া, আর সেটাই আমরা কিন্তু করে যাচ্ছি এবং সেটা আমাদের করতে হবে। এককভাবে করলে হবে না, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা যার যার এলাকায় একেক জন যদি দায়িত্ব নেন একজনকে সহযোগিতা করবেন, তাহলেই কিন্তু সেই মানুষটার জীবন দাঁড়িয়ে যায়। সেভাবে সবাই কাজ করবেন। মানুষের আস্থা বিশ্বাস এটাই আমাদের বড় শক্তি। একমাত্র জনগণের শক্তিতেই আমরা বিশ্বাস করি।’


এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ