রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৩৬ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বাংলাদেশ সর্বদা প্রস্তুত: প্রধানমন্ত্রী দুর্দান্ত মেসিতে জয় পেল মায়ামি দুঃসংবাদ পেল ধোনি-মুস্তাফিজদের চেন্নাই বিএনপির নেতিবাচক কর্মকাণ্ডে জনগণের আগ্রহ নেই : ওবায়দুল কাদের বিএনপিনেতা হাবিবুর রহমান হাবিব জামিনে মুক্ত গরমে হাসপাতালগুলোকে যে নির্দেশ দিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী বোরো মৌসুমে ধান-চাল সংগ্রহের মূল্য নির্ধারণ মিয়ানমার নৌবাহিনীর গুলিতে বাংলাদেশি ২ জেলে গুলিবিদ্ধ ‘কাতার আমিরের সফরে ছয়টি চুক্তি ও পাঁচটি সমঝোতা স্মারক সই হবে’ পেনশন স্কিম, প্রত্যাশার চেয়েও গ্রাহক কম ইসরায়েলে নেতানিয়াহু সরকারের বিরুদ্ধে হাজারো মানুষের বিক্ষোভ ইসরায়েল–ইউক্রেনকে সহায়তায় যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্টে বিল পাস ইসরায়েলি সেনাদের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞার পরিকল্পনা পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি হামলা, ১৪ ফিলিস্তিনি নিহত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম থেকে ব্যারিস্টার খোকনকে অব্যাহতি

ইউরোপের মতো ভারতফেরৎ যাত্রীদেরও ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিন

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : মার্চ ৩০, ২০২১

বৃত্তান্ত প্রতিবেদক: দেশে করোনায় শনাক্ত ও মৃত্যু বেড়ে যাওয়ায় সংক্রমণ প্রতিরোধে ব্যবস্থা নিতে ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে ফেরা যাত্রীদের মতো সরকার এবার ভারতফেরৎ যাত্রীদের জন্য ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা করেছে। তাদেরও নিজ খরচে হোটেলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার।

মঙ্গলবার এ-সংক্রান্ত নির্দেশনার একটি প্রজ্ঞাপন দেশের সকল সীমান্তের ইমিগ্রেশনের স্বাস্থ্য বিভাগ ও ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষের হাতে পৌঁছেছে বলে জানা গেছে।

আগে দেশে ফিরে পাসপোর্টধারী যাত্রীরা সরকারি অর্থায়নে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকার সুযোগ পেলেও এবার ব্যক্তিগত খরচে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে যাত্রীদের। এ কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

তবে যাত্রীরা সরকারি তত্ত্বাবধানে কোয়ারেন্টিন চালুর দাবি জানিয়েছেন।

এদিকে পূর্বপ্রস্তুতি না থাকায় এই মুহূর্তে ভারতফেরৎ যাত্রীদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখা সম্ভব হচ্ছে না বলে জানায় স্বাস্থ্য বিভাগ।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন স্বাস্থ্য বিভাগের মেডিক্যাল অফিসার আশরাফুজ্জামান জানান, যাত্রীদের কোয়ারেন্টিনে রাখার পরিবেশ তৈরি করতে স্থানীয় প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগ যৌথভাবে কাজ করছে। এ নিয়ে উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠক রয়েছে। পরিবেশ তৈরি করে আগামী দুই-এক দিনের মধ্যে কোয়ারেন্টিন কার্যক্রম তাঁরা শুরু করবেন।

ভারতফেরত যাত্রী আবু সালেহ জানান, চিকিৎসা করাতে ভারতে গিয়েছিলাম। যাওয়ার সময় ১৫শ’ টাকা করোনা পরীক্ষা করাতে লেগেছিল। আবার ফেরার সময় ভারতীয় ১৫শ’ রুপি লেগেছে করোনা রিপোর্ট করতে। নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে তিনিও চান কোয়ারেন্টিন ব্যবস্থা। তবে খরচ নিয়ে দুশ্চিন্তা করছেন তিনি। সরকারিভাবে কোয়ারেন্টিন সেবার দাবি জানান তিনি।

বর্তমানে করোনা পরিস্থিতিতে শর্তসাপেক্ষে শুধু বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে যাত্রীদের ভারত প্রবেশের সুযোগ রয়েছে। প্রতিদিন এক হাজার থেকে ১৫শ’ যাত্রী দুই দেশের মধ্যে যাতায়াত করছে। তাদের ৯৫ শতাংশ মেডিক্যল ভিসার যাত্রী। অন্যান্য ৫ শতাংশ যাত্রী যাচ্ছেন বিজনেস ও কূটনৈতিক ভিসায়। টুরিস্ট ভিসা গত বছরের ১৩ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে।


এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ