বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:২৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
বিশ্বে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১১৭৪ জনের মৃত্যু মস্কো আগ বাড়িয়ে পরমাণু অস্ত্র ব্যবহার করবে না : পুতিন আফগানিস্তানে প্রকাশ্যে ‘জঘণ্য’ মৃত্যুদন্ড কার্যকরের নিন্দা যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পরই পেরুর প্রেসিডেন্ট আটক মেসিকে নিয়ে এবার মুখ খুললেন ডাচ কোচ ফন হাল ম্যানইউর ১১ ফুটবলার খেলছেন বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ইনজুরির গুঞ্জন উড়িয়ে যা বললেন ডি পল পিতৃ-মাতৃভূমির টানে অন্যদেশে যাননি হাকিমি-জিয়েশরা বিশ্বকাপ ভেন্যু ৯৭৪ অনুদান চায় বাংলাদেশ চঞ্চলের ‘কারাগার’ নিয়ে তৈরি হয়েছে নতুন রহস্য! (ভিডিও) সাগরে ঘূর্ণিঝড় ‘মানদৌস’, বন্দরে বাড়লো হুঁশিয়ারি সংকেত শান্তিপূর্ণ সমাবেশ করতে দেয়ার জন্য বাংলাদেশের প্রতি জাতিসংঘের আহ্বান বিশ্ববাজারে স্বর্ণ ক্রয়ের নতুন রেকর্ড Putin warns of ‘lengthy’ Ukraine conflict, rising nuclear tensions Russia nuclear threat reduced by international pressure: Scholz

খালিয়াজুরীসহ নেত্রকোনায় ধনু’র পানি বাড়ছেই, হুমকির মুখে ফসল রক্ষা বাঁধ

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : এপ্রিল ৫, ২০২২

বৃত্তান্ত প্রতিবেদক: নেত্রকোনার খালিয়াজুরী উপজেলায় ধনু নদের পানি বেড়ে বিপৎসীমা ছুঁই ছুঁই করছে। মঙ্গলবার বেলা একটার দিকে খালিয়াজুরী পয়েন্টে নদের পানি বিপৎসীমার মাত্র ১ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

পানি বেড়ে যাওয়ায় খালিয়াজুরীসহ জেলার মদন ও মোহনগঞ্জের হাওরের বিভিন্ন ফসল রক্ষা বাঁধ হুমকির মধ্যে রয়েছে। এ অবস্থায় বোরোসহ হাওর অঞ্চলের ফসল নিয়ে শঙ্কায় পড়েছেন কৃষকেরা।

নেত্রকোনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী মোহন লাল সৈকত বলেন, খালিয়াজুরী পয়েন্টে ধনু নদের বিপৎসীমা ৪ দশমিক ১৫ সেন্টিমিটার। বেলা ১টার দিকে পানি ৪ দশমিক ১৪ সেন্টিমিটারে পৌঁছেছে। অর্থাৎ মাত্র ১ সেন্টিমিটার বাড়লেই পানি বিপৎসীমা পার করবে। তিনি বলেন, ‘হাওরের ফসল রক্ষার অনেক বাঁধ হুমকির মধ্যে আছে। বাঁধের পানি ছুঁই ছুঁই অবস্থা। বাঁধ রক্ষায় আমরা স্থানীয়দের নিয়ে আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছি।’

সরেজমিনে দেখা গেছে, উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ধনু নদ ছাড়াও অন্যান্য নদ-নদীতে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত আছে। এতে হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধগুলোতে পানির চাপ বেড়ে গেছে। মদনের ফতেপুর হাওর, মোহনগঞ্জের ডিঙ্গাপোতা হাওর, খালিয়াজুরীর কীর্তনখোলা হাওর, লক্ষ্মীপুর হাওর, চুনাই হাওর, বাইদ্যার চর, কাটকাইলের কান্দা, বৈলং হাওরের বেড়িবাঁধ হুমকিতে আছে। এসব বাঁধের কোথাও কোথাও ধস ও ফাটল ধরেছে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে সেগুলোর সংস্কারকাজও চলছে।

বাঁধের বাইরের অংশ তলিয়ে প্রায় ৩টি উপজেলার প্রায় ৫০০ হেক্টর জমির ধান পানির নিচে তলিয়ে গেছে। ফসল রক্ষায় বিভিন্ন বাঁধের পাশে গতকাল সারা রাত ছিলেন কৃষকেরা। ভাঙন ঠেকাতে কোনো কোনো হাওরে উপজেলা প্রশাসন, পাউবো কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিরা স্থানীয় লোকজন নিয়ে বাঁশ, বস্তা দিয়ে স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করেছেন।

অনেক এলাকার মসজিদে মাইকিং করা হচ্ছে। আবার কোথাও কোথাও কাঁচা ধান কাটার হিড়িক পড়ে গেছে।

স্থানীয় কৃষক ও হাওর আন্দোলনের নেতারা বলছেন, পরিস্থিতি খুবই উদ্বেগজনক। যেকোনো সময় বাঁধ ভেঙে হাওরে পানি প্রবেশ করতে পারে। পানি ঢুকলেই ফসলহানির ঘটনা ঘটতে পারে।

নেত্রকোনা হাওর বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি ইকবাল হোসেন বলেন, ‘হাওরের ফসল নিয়ে আমরা খুবই শঙ্কিত। মনে হচ্ছে, এবারের পরিস্থিতি ২০১৭ সালের মতো হতে পারে। হাওরের সব ধান এখনো কাঁচা। এক সপ্তাহ পর পানি এলে ধানের তেমন ক্ষতি হতো না।’

তিনি জানান, এবার নেত্রকোনায় সময়মতো বাঁধ হয়েছে ঠিকই, কিন্তু শুধু বাঁধ দিয়ে ফসল রক্ষা হবে না। ফসল রক্ষা করতে হলে বাঁধের সঙ্গে নদ-নদী ও খাল খনন করতে হবে।

খালিয়াজুরী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এইচ এম আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘নেত্রকোনায় তেমন কোনো বৃষ্টি হচ্ছে না। ভারতের চেরাপুঞ্জির বৃষ্টিই ভয়ের মূল কারণ। পাহাড়ি ঢলে ধনু নদের পানি বৃদ্ধি অব্যাহত আছে। হাওরের বাঁধগুলো খুবই ঝুঁকিতে আছে। আমরা দিনরাত কৃষকদের নিয়ে মাঠে আছি।’

জেলা প্রশাসক কাজী মো. আবদুর রহমান গত শনিবার সন্ধ্যা থেকে দিনের বিভিন্ন সময় খালিয়াজুরী, মদন ও মোহনগঞ্জের বিভিন্ন হাওরের বাঁধ পরিদর্শন করছেন।

মঙ্গলবার বেলা একটার দিকে খালিয়াজুরীর কীর্তনখোলা হাওরের বাঁধ পরিদর্শন করেন তিনি। এ সময় তিনি বলেন, হাওরের কৃষকদের একমাত্র ফসলই হলো বোরো। এ ফসলের ওপরই তাঁদের সারা বছরের খরচসহ সবকিছু নির্ভর করে। কৃষকদের ফসল রক্ষায় তাঁরা প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এখন পর্যন্ত কোনো বাঁধ ভেঙে হাওরে পানি ঢোকেনি। কিন্তু খুবই আতঙ্কে আছেন। পানি যেভাবে বাড়ছে, ভয় হচ্ছে। প্রশাসন, পাউবো কর্মকর্তা, কৃষক, জনপ্রতিনিধি—সবাই মাঠে আছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ