মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৭:৫৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
পঞ্চগড়ে মন্দিরগামীদের নিয়ে নৌকাডুবি, ২৪ জনের লাশ উদ্ধার, অনেকেই নিখোঁজ ডিএনসিসি মেয়র, ওয়াসা এমডিকে কারাগারে পাঠাতে চান নদী কমিশন চেয়ারম্যান নতুন মূল্য নির্ধারণ: পাম অয়েলে কমলো ১২ টাকা, চিনিতে ৬ টাকা বেনজীরের বিদায়, পুলিশের নতুন আইজি মামুন, র‌্যাবের ডিজি খুরশীদ ডলারে অতিরিক্ত মুনাফার অভিযোগ থেকে মুক্ত ছয় ব্যাংকের ট্রেজারি কর্তারা শত অনিয়মের আখড়া ছিল ই-ভ্যালি, ছিলনা আয়-ব্যয়ের হিসাব ১৬ কোটি মানুষের কাছে কৃতজ্ঞতা সাফজয়ী অধিনায়ক সাবিনার ল্যাব থাকলেও টেস্ট ছাড়াই হালাল সনদ দেয় ইসলামিক ফাউন্ডেশন ইন্টারন্যাশনাল লিজিং ও সোনার বাংলা ক্যাপিটাল’র আমানত-দায় শেয়ারে রূপান্তর, চুক্তি সকল শক্তি দিয়েও নদী দখলকারীদের উচ্ছেদ করা যাচ্ছেনা: টুকু হংকংকে হারিয়ে সুপার ফোর নিশ্চিত করল ভারত প্রধানমন্ত্রীকে হত্যা ষড়যন্ত্রে সরকারি দলের লোকজন জড়িত হাসপাতাল থেকে বাসায় ফিরেছেন খালেদা জিয়া বিএনপি-জামাতের সম্পর্ক ভেতরে অটুট: কাদের দেশে জ্বালানি তেলের নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ অব্যাহত থাকবে: প্রধানমন্ত্রী

জ্বালানি তেলের দাম ৫ টাকা কমানোকে সমন্বয়হীনতা বলছে: ড. দেবপ্রিয়

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : আগস্ট ৩০, ২০২২
জ্বালানি তেলের দাম ৫ টাকা কমানোকে সমন্বয়হীনতা বলছে: ড. দেবপ্রিয়

জ্বালানি তেলের দাম ৪০ টাকা বাড়িয়ে ৫ টাকা কমানো সিদ্ধান্ত সমন্বয়হীনতার উৎকৃষ্ট উদাহরণ বলে জানিয়েছেন অর্থনীতিবিদ ও সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগ (সিপিডি) এর সম্মানীয় ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য।

মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরাম ‘ইআরএফ ডায়ালগ’ তিনি একথা বলেন।

ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, দ্রব্যমূল্যের দাম নির্ধারণে অর্থ মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটি দীর্ঘদিন ধরে কোনো বৈঠক করে না। কোনো একটা মন্ত্রণালয়ের একজন সচিবের সিদ্ধান্তে বাজারের দাম কমানো বা বাড়ানো হয়। এক্ষেত্রে কি পরিমাণ রাজস্ব আদায় হবে সে হিসাবে কি তাদের কাছে আছে।

ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, ‘নিত্যপণ্যের বাজার একটা বদমাশই জায়গা। বাংলাদেশ চাপে আছে সংকটে নেই। যত্ন না নিলে শরীরের ক্ষতগুলো যেমন আরো মারাত্মক হয়ে যায়। তেমনি বাজারের ওপর নিয়ন্ত্রণ না থাকলে জনগণের দুর্ঘ গণতন্ত্র মানবাধিকার এগুলো উন্নয়নের অংশ। সবচেয়ে বড় প্রকল্প আদো কাজে আসবে কীনা তা আমরা জানি না।

গত এক দশক বা দেড় দশকে আমরা যে উন্নয়নের অভিযাত্রায় আছি এরমধ্যে আমাদের সাফল্যগুলোকে কীভাবে দেখবো? বাংলাদেশের পরবর্তী রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সামাজিক দায়িত্ব কি? বৈশ্বিক যে পরিস্থিতি আসছে সামনে তা খুব দ্রুতই কেটে যাচ্ছে না, বাংলাদেশের মূল সমস্যা হল আর্থিক খাতের সমস্যা, সরকারের রাজস্ব আদায় কম সেহেতু খরচ করার সক্ষমতাও কম, প্রয়োজন অনুযায়ী জ্বালানিতে ভর্তুকি দিতে পারছে না সরকার, বাংলাদেশের ৫০ বছরের ইতিহাসের মধ্যে প্রতিশ্রুতিশীল একটি দশক আমরা পার করে এসেছি তা সমালোচক হিসেবেও স্বীকার করতে হবে, আমরা নিম্ন আয়ের দেশের তালিকা থেকে বের হয়ে নিম্নমধ্যম আয়ের দেশে গেছি এবং স্বল্পোন্নত দেশের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি। আমাদের ভৌত অবকাঠামোগত বেড়েছে। কিন্তু স্বাস্থ্য ও শিক্ষাখাতে যথেষ্ট বিনিয়োগ হয়নি।

পেশাদার অর্থনীতিবিদের দুঃখের জায়গাটা হলো বিচ্যুতি রেখা, গেলা একদশকে মূলত রাষ্ট্রীয় বিনিয়োগ দ্বারা ধাবিত হয়েছে। তবে ব্যক্তিগত বিনিয়োগ না হওয়ায় প্রত্যক্ষ বিনিয়োগ ২ বিলিয়ন ডলারের ওপরে উঠতে পারে নাই, যা কোনোভাবেই একটা নিম্নমধ্য আয়ের দেশের জন্য কাম্য হতে পারে না। রাষ্ট্রীয় বিনিয়োগ বেশি করলে ব্যক্তি বিনিয়োগকে কোনঠাসা করে ফেলে, বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় বিনিয়োগ বাড়ার পরও ব্যক্তি বিনিয়োগ বাড়েনি, যা একটি বড় বিষয়।

আর্থিক খাতের দুর্বলতা কর আহরণ করার হার। দেশজ আয় বাড়লেও আয়ের ওপর কর এলো না কেন। আয় হয়েছে তারপরও কর আসলো না কেন? তাহলে কি আয় হয় নাই নাকি কর আদায় করা যাইনি। সরকার তার নিজের প্রয়োজন মত আমদানি করতে পারে না, টিসিবির পণ্য দিয়ে দেশের গরীব মানুষের প্রয়োজন মেটাতে পারছে না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ