রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:০০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ই-কমার্সের প্রতারণার শিকারদের আইনের আশ্রয় নেওয়ার পরামর্শ আইনজ্ঞদের তিন-চারদিনে আরটি পিসিআর ল্যাব স্থাপনসহ কার্যক্রম শুরু, বেবিচক চেয়ার‌ম্যানের আশ্বাস নৌদুর্ঘটনা তদন্ত, নকশা অনুমোদন, পরীক্ষার দায়িত্ব নৌ-অধিদপ্তর থেকে প্রত্যাহারের দাবি অনুমোদনের পরও স্থান-শর্তের জালে আটকা বিমানবন্দরে আরটি-পিসিআর ল্যাব স্থাপন কারিগরি শিক্ষা জনপ্রিয় করতে প্রচার কৌশল প্রনয়ণ ইনফ্লুয়েঞ্জা নিয়ন্ত্রণে দেশে শীঘ্রই ভ্যাকসিন নীতিমালা: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী ইভ্যালির অফিস আবার বন্ধ কোভিড: বাংলাদেশিদের ইংল্যান্ডে যাওয়া সহজ হচ্ছে চীন থেকে এল সিনোফার্মের আরও ৫০ লাখ টিকা ‘সংঘবদ্ধ চক্রের আক্রমণের শিকার হচ্ছে নগদ’ অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার নতুন ফাঁদ ‘রিং আইডি’! ইভ্যালির রাসেলের বাসা থেকে গোপনীয় দলিল জব্দ রাজধানীতে করোনা হাসপাতালের ৭৫ শতাংশ শয্যাই খালি অষ্টম ও নবম শ্রেণির ক্লাস সপ্তাহে দুই দিন ইভ্যালিকে দেউলিয়া ঘোষণা করতে চেয়েছিলেন রাসেল: র‍্যাব ১০ ই–কমার্স প্রতিষ্ঠানের  নিরীক্ষা চায় বাংলাদেশ ব্যাংক দুদকের মামলায় আসামি কেয়া কসমেটিকস মালিক পরিবার আগামী বাণিজ্য মেলা পূর্বাচলে, শুরু ১ জানুয়ারি ৩ বারের বেশি ঋণ পুনঃতফসিল করতে পারবে না আর্থিক প্রতিষ্ঠান কুইক রেন্টাল’ বিদ্যুতকেন্দ্র আরও ৫ বছর রাখতে সংসদে বিল

টালমাটাল অর্থনীতির মধ্যেই আফগানিস্তানে সরকার ঘোষণার প্রস্তুতি তালেবানদের

রিপোর্টারের নাম : / ২২ জন দেখেছেন
আপডেট : রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:০০ পূর্বাহ্ন

বৃত্তান্ত ডেস্ক: টালমাটাল অর্থনীতির মধ্যেই যখন মনে করা হচ্ছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় দ্রুত এগিয়ে না এলে কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ধসে পড়তে পারে দেশটির অর্থনীতি, ঠিক এমনই অবস্থার মধ্যেই  বিদ্রোহী তালেবানরা আফগানিস্তানে তাদের নতুন সরকার ঘোষণার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে।

তালেবান কর্মকর্তা আহমদউল্লাহ মুস্তাকি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে জানিয়েছেন, কাবুলের প্রেসিডেন্ট ভবনে একটি অনুষ্ঠান আয়োজনের প্রস্তুতি চলছে। স্থানীয় গণমাধ্যম বলেছে, যেকোনো সময় নতুন সরকারের ঘোষণা আসতে পারে।

আফগানিস্তানের অর্থনীতি যেহেতু ধুঁকছে, তাই আন্তর্জাতিক দাতা ও বিনিয়োগকারীদের কাছে নতুন সরকারের বৈধতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। খরা ও যুদ্ধের কারণে দেশটির অর্থনীতি দীর্ঘদিন ধরেই টালমাটাল অবস্থায় আছে। খরা ও সংঘর্ষে প্রায় ২ লক্ষ ৪০ হাজার আফগান প্রাণ হারিয়েছেন।

তালেবান প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, যেকোনো বিদেশি নাগরিক বা আফগানকে নিরাপদে দেশ ছাড়ার অনুমতি দেওয়া হবে। কিন্তু কাবুল বিমানবন্দর এখনো বন্ধ থাকায় অনেকেই আফগানিস্তান ছাড়তে পারেনি। কাতারের একটি কারিগরি টিম বিমান বন্দরের কার্যক্রম ফের চালু করার জন্য আলোচনা করতে কাবুল পৌঁছেছে।

এদিকে তালেবানের সর্বোচ্চ নেতা হায়বাতুল্লাহ আখন্দজাদা নতুন শাসন পরিষদে সর্বোচ্চ ক্ষমতার অধিকারী হবেন বলে জানা গেছে। তার অধীনে কাজ করবেন প্রেসিডেন্ট।

তালেবানের সর্বোচ্চ নেতার তিনজন সহকারী রয়েছে: গোষ্ঠীটির প্রয়াত সহপ্রতিষ্ঠাতা মোল্লা ওমরের ছেলে মৌলভী ইয়াকুব, শক্তিশালী হাক্কানি নেটওয়ার্কের নেতা সিরাজউদ্দিন হাক্কানি, এবং গোষ্ঠীটির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য আব্দুল গনি বারাদার।

তালেবানের আগের সরকার চালাত একটি অনির্বাচিত লিডারশিপ কাউন্সিল। এবার গোষ্ঠীটি মধ্যপন্থি সরকার গঠনের চেষ্টা করছে। মানবাধিকার ও নারী অধিকার রক্ষা করার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে। কিন্তু তাদের এই প্রতিশ্রুতি নিয়ে সন্দিহান ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও অন্যান্য বিদেশী শক্তিরা।

ইউরোপিয়ান কমিশনের এশিয়া ও প্যাসিফিক অঞ্চলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গানার ওয়াইগান্ড বলেছেন, অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠন, মানবাধিকারের প্রতি সম্মান প্রদর্শন ও সহায়তা কর্মীদের নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করতে দেওয়ার শর্ত পূরণ না করলে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ইসলামী গোষ্ঠীটিকে স্বীকৃতি দেবে না।

অর্থনীতিতে ধস

মানবাধিকার সংগঠনগুলো বলছে, তীব্র খরা ও যুদ্ধের কারণে হাজার হাজার আফগান পরিবার ঘর ছাড়তে বাধ্য হয়েছে। এর ফলে মারাত্মক বিপর্যয় নেমে আসতে পারে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোও বলছে, তালেবান সরকার গঠন করলেও তাদের ‘পর্বতসম’ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে। বিশেষ করে অর্থনীতি, নিরাপত্তা, পররাষ্ট্রনীতি সর্বোপরি সাধারণ আফগানদের মধ্যে তালেবানের প্রতি আস্থা প্রতিষ্ঠাই হবে দলটির জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।

আফগানিস্তানে এখন টাকার জন্য হাহাকার পড়ে গেছে। দেশের বাইরে আফগান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ১০ বিলিয়ন ডলার মজুদ রয়েছে। সেই টাকা অচিরেই তালেবানের হাতে আসছে না।

তালেবানের নিয়োগ দেওয়া কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নতুন গভর্নর ব্যাংকগুলোকে আশ্বস্ত করেছেন যে, গোষ্ঠীটি একটি পূর্ণ ক্রিয়াশীল অর্থনৈতিক ব্যবস্থা চায়। কিন্তু সেটি কীভাবে হবে, তা সম্পর্কে তিনি তেমন কিছুই জানাননি।

ধারণা করা হচ্ছে, চলতি অর্থবছরে আফগানিস্তানের প্রকৃত মোট দেশজ উৎপাদন ৯.৭ শতাংশ কমে যাবে। আগামী বছর কমবে ৫.২ শতাংশ।

দেশটির অর্থনীতি টিকিয়ে রাখতে হলে বিদেশি বিনিয়োগ দরকার। কিন্তু আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা সহায়তার সীমা ও সময়কাল এবং তালেবানের সঙ্গে সম্ভাব্য শান্তি চুক্তির ফলাফল সম্পর্কে অনিশ্চয়তার কারণে বিদেশি বিনিয়োগ আরও কমেছে।

কাবুল পতনের পর থেকে দেশের ভেতরে-বাইরে টাকা স্থানান্তর প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে। আফগানরা সাধারণত ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন ও মানিগ্রামের মাধ্যমে টাকা পাঠায়। এই দুটি কোম্পানিই আফগানিস্তানের সঙ্গে লেনদেন বন্ধ করে দিয়েছে। তাছাড়া শতাব্দীপ্রাচীন হাওয়ালা নেটওয়ার্কও প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে।

বিশ্লেষক এডওয়ার্ড মোয়া বলেন, চাইলেও এখন আর কেউ আফগানিস্তানে ব্যবসা করতে পারবেন না। তার ওপরে তালেবানকে আফগানিস্তানের বৈধ সরকার হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়নি। এ কারণে গোষ্ঠীটি আমেরিকায় থাকা বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার রিজার্ভ ফান্ড ব্যবহার করতে পারছে না। এ কারণে আফগান অর্থনীতির জন্য সামনে কঠিন দিন অপেক্ষা করছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ