বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:০৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
পাকিস্তান-নিউজিল্যান্ডের উভয়েরই লক্ষ্য সিরিজে এগিয়ে যাওয়া মিয়ানমার থেকে ফিরলেন ১৭৩ বাংলাদেশি আপিল বিভাগে ৩ বিচারপতি নিয়োগ মন্ত্রী-এমপির স্বজনরা প্রার্থিতা প্রত্যাহার না করলে ব্যবস্থা: কাদের ফিলিপাইনে তাপমাত্রা ৪৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস উত্তর কোরীয় প্রতিনিধি দলের ইরান সফর খালেদা জিয়ার গ্যাটকো মামলায় চার্জশুনানি ২৫ জুন অফশোর ব্যাংকিংয়ে সুদের ওপর কর প্রত্যাহার রানা প্লাজায় নিহতদের স্মরণ দেশের হজ ব্যবস্থাপনা বিশ্বের মধ্যে স্মার্ট হবে: ধর্মমন্ত্রী থাইল্যান্ডে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী তাপদাহের মধ্যে গ্রামে ১০৪৯ মেগাওয়াট লোডশেডিং ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিলো জ্যামাইকা সুইজারল্যান্ডে জব্দ রয়েছে রাশিয়ার ১ হাজার ৪শ’ কোটি ডলার জিবুতি উপকূলে অভিবাসীবাহী নৌকাডুবিতে নিহত ৩৩

ডলারের বিপরীতে টাকার মান আরেক দফা কমালো বাংলাদেশ ব্যাংক

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : মে ১০, ২০২২

ডলারের বিপরীতে ১২ দিনের মাথায় টাকার মান আরেক দফা কমালো বাংলাদেশ ব্যাংক। গত ২৭ এপ্রিল মার্কিন ডলারের বিপরীতে ২৫ পয়সা কমিয়ে টাকার মান ৮৬ টাকা ৪৫ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছিলো। সোমবার (৯ মে) আরেক দফায় ২৫ পয়সা কমিয়ে ৮৬ টাকা ৭০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছে। এই সিদ্ধান্ত সোমবারই কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে তফসিলি ব্যাংকগুলোকে অনানুষ্ঠানিকভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। কয়েকটি ব্যাংকের তহবিল ব্যবস্থাপক এই বিষয়ে নিশ্চিত করেছেন। তবে তারা জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই বেঁধে দেওয়া দরে ডলার লেনদেন করতে পারছেন না তারা। করপোরেট ঢিলিংয়ের মাধ্যমে লেনদেন করা হচ্ছে সাড়ে তিন থেকে চার টাকা বেশি দরে। তবে খোলা বাজারে প্রতি ডলার ৯২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক জানিয়েছে, দেশের অস্বাভাবিক হারে আমদানি ব্যয় বেড়ে গেছে। একই সাথে বেড়ে গেছে আকুর (এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়ন) দায়। গত দুই মাসে (মার্চ-এপ্রিল) আকুর দায় পরিশোধ করতে হয়েছে ২২৪ কোটি মার্কিন ডলার, যা এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ। বছরখানেক আগেও যেখানে সামগ্রিক আমদানি দায় পরিশোধ করতে হতো সাড়ে ৩ বিলিয়ন ডলার থেকে ৪ বিলিয়ন ডলার। এখন তা দ্বিগুণ হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যান থেকে দেখা যায়, চলতি ২০২১-২০২২ অর্থবছরের প্রথম মাসেও যেখানে আমদানি দায় পরিশোধ করতে হয়েছে প্রায় ৫ বিলিয়ন ডলার, গত ফেব্রুয়ারিতে তা বেড়ে হয়েছে প্রায় সাড়ে ৮ বিলিয়ন ডলার। এতে আমদানির দায় পরিশোধে ডলারের টান পড়েছে।

ব্যাংকাররা জানিয়েছেন, বেশির ভাগ ব্যাংকই তাদের চাহিদার চেয়ে ডলার সংগ্রহ করতে পারছে না। আগে রফতানি আয় ও রেমিট্যান্সের মাধ্যমে যে পরিমাণ ডলার আহরণ করতো তা দিয়ে আমদানি ব্যয় মেটানো যেত। কিন্তু এখন চাহিদা অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ায় রেমিট্যান্স ও রফতানি আয় দিয়ে আমদানি ব্যয় মেটানো যাচ্ছে না। বাধ্য হয়ে বেশির ভাগ ব্যাংক তাদের সঙ্কট মেটাতে আন্তঃব্যাংক মুদ্রাবাজার থেকে ডলার সংগ্রহ করতে না পেরে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে আসছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক তার রিজার্ভ থেকে অতিপ্রয়োজনীয় পণ্যের আমদানি ব্যয় মেটাতে ব্যাংকগুলোকে ডলার সরবরাহ করছে। তার পরও চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে প্রায় ৫০০ কোটি মার্কিন ডলার ব্যাংকগুলোকে জোগান দেওয়া হয়েছে। কিন্তু চাহিদা অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ায় ডলারের মান ধরে রাখা যাচ্ছে না।

ব্যাংকাররা জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংক টাকার মান কমিয়ে দিচ্ছে। কিন্তু বাজারে লেনদেন হচ্ছে আরো বেশি দামে। আবার কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকেও ব্যাংকগুলোর বিরুদ্ধে তেমন কোনো পদক্ষেপ নিতে পারছে না। কারণ আন্তর্জাতিক নিয়ম মেনেই ব্যাংকগুলো লেনদেন করছে। যেমন- কোনো ব্যাংকের ৫ দিন পরে প্রয়োজন হবে ১০ কোটি ডলার। তারা ৫ দিন আগেই পর্যাপ্ত ডলার রয়েছে এমন কোনো ব্যাংকের কাছ থেকে অগ্রিম কেন্দ্রীয় ব্যাংক বেঁধে দেওয়া মূল্যেই ডলার কিনে রাখছে। তবে সাথে ৩ থেকে ৪ শতাংশ ডলারের বিনিময় মূল্যের ওপর প্রিমিয়াম যুক্ত করছে। এতে ৮৬ টাকা ৪৫ পয়সার ডলার ৪ টাকা যুক্ত হয়ে ৯০ টাকার ওপরে উঠে যাচ্ছে। এভাবেই কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বেঁধে দেওয়া মূল্য কার্যকর হচ্ছে না। এর পরও কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে গতকাল টাকার মান আরও ২৫ পয়সা কমিয়ে প্রতি ডলারের মূল্য ৮৬ টাকা ৪৫ পয়সা থেকে ৮৬ টাকা ৭০ পয়সা পুনর্নির্ধারণ করেছে। তবে এই বিষয়টি কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করা হয়নি।

এই বিষয়টি ব্যাংকের তহবিল ব্যবস্থাপক জানিয়েছেন, গতকালই কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে টাকার মান ২৫ পয়সা কমিয়ে ৮৬ টাকা ৪৫ পয়সা থেকে ৮৬ টাকা ৭০ পয়সা নির্ধারণ করতে বলেছে। ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন, মূলতঃ ডলারের চাহিদা বাড়ায় এই সঙ্কট তৈরি হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক ডলার সরবরাহ না করলে ডলারের দাম ১০০ টাকায়ও পাওয়া যেত না। তবে তিনি শঙ্কা প্রকাশ করেছেন, কারণ আকুর দায় পরিশোধের পর রবিবার বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৪১ দশমিক ২৬ বিলিয়ন ডলারে নেমে গেছে; যা দুই বছরের আগের অবস্থানে চলে গেছে। বর্তমান রিজার্ভ দিয়ে সর্বোচ্চ ৫ মাসের আমদানি দায় মেটানো যাবে, যা আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী থাকার কথা কমপক্ষে তিন মাসের।

ডলারের চাহিদা যেহারে বাড়ছে, তাতে এই রিজার্ভ আরও কমে যেতে পারে। তখন আন্তর্জাতিক মানদণ্ড বজায় রাখতে গেলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে ডলার সরবরাহ করা সম্ভব হবে না। তখন বিপত্তি দেখা দেবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।


এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ