বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০৬:৫৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
যুক্তরাষ্ট্রেকে হারিয়ে সুপার এইটে ভারত বাংলাদেশের ওপর ভিসা নিষেধাজ্ঞা তুলে নি‌ল ওমান তিস্তা মহাপরিকল্পনার বর্তমান পরিস্থিতি জানালেন প্রধানমন্ত্রী ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে : প্রধানমন্ত্রী দেশের অর্থনীতি-রাজনীতি ধ্বংস করেছে সরকার : মির্জা ফখরুল বেনজিরের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ কুয়েতে শ্রমিক আবাসন ভবনে আগুন, নিহত ৪১ এমপি আনার হত্যার তদন্ত সঠিক পথেই এগুচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. ইউনূসকে বিচারের নামে হয়রানি করা হচ্ছে: ব্যারিস্টার খোকন বিচার প্রক্রিয়া সম্পর্কে ড. ইউনূসের বক্তব্য অসত্য: আইনমন্ত্রী আদালতে খাঁচার ভেতর দাঁড়িয়ে থাকা অপমানজনক: ড. ইউনূস মূল্যস্ফীতির হার সাড়ে ৬ শতাংশে নামানো অবাস্তব: সিপিডি বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে বিমান বাহিনীর প্রধানের শ্রদ্ধা পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি অভিযানে ৬ ফিলিস্তিনি নিহত সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ দেশের তালিকায় তৃতীয় বাংলাদেশ

তিস্তায় পানি বৃদ্ধি, নির্ঘুম রাত কাটছে নদী তীরবর্তী মানুষের

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : জুন ১৭, ২০২২
তিস্তায় পানি বৃদ্ধি, নির্ঘুম রাত কাটছে নদী তীরবর্তী মানুষের

লালমনিরহাটে আবারো হু হু করে বাড়ছে তিস্তা নদীর পানি। এতে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে তিস্তা পারের বাসিন্দারা।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) রাত ৯টার দিকে জেলার হাতিবান্ধার দোয়ানীতে অবস্থিত তিস্তা ব্যারাজ পয়েন্টে পানি ৫২.৭০ সেন্টিমিটারে প্রবাহিত হচ্ছে (স্বাভাবিক ৫২.৬০) যা বিপৎসীমার ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

লালমনিরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘উজানে ঢল ও ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে।’

স্থানীয়রা জানান, ইতোমধ্যে নদী তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল ও চরাঞ্চলের কয়েক হাজার মানুষ পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। সকাল ৯টায় পানি বিপৎসীমার কাছাকাছি এবং বিকেল ৩টায় বিপদসীমা দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। তবে রাত ৯ ডালিয়া পয়েন্ট পানি বিপৎসীমার ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। রাতে পানি আরও বাড়তে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে।

উজানের ঢল ও টানা বৃষ্টিপাতে তিস্তা ও ধরলা নদীর পাশাপাশি জেলার অন্যান্য নদী ও ডোবায় পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে ক্রমেই বাড়ছে দুর্ভোগ।

লালমনিরহাট সদর উপজেলার কালমাটির সামছুল মিয়া জানান, নদীর পানি বিকেল থেকে হু হু করে বাড়ছে। নদীর তীরবর্তী হওয়ায় কয়েকদিন থেকে রাতে ঘুম আসছে না চোখে। কখন কি হয় সে চিন্তাই এখন মুল ভয়। এর আগে তিস্তার গ্রাসে ৮ বার বাড়ি সরিয়ে নিয়েছি বলেও জানান তিনি। শুধু সামছুল নয় ওই এলাকার ওবায়দুল,আমজাদসহ অনেকেই জানান নির্ঘুম রাত কাটানোর অভিজ্ঞতা।

এদিকে বন্যাসহ যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় সব রকম প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসক আবু জাফর।


এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ