বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০৬:৫৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
যুক্তরাষ্ট্রেকে হারিয়ে সুপার এইটে ভারত বাংলাদেশের ওপর ভিসা নিষেধাজ্ঞা তুলে নি‌ল ওমান তিস্তা মহাপরিকল্পনার বর্তমান পরিস্থিতি জানালেন প্রধানমন্ত্রী ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে : প্রধানমন্ত্রী দেশের অর্থনীতি-রাজনীতি ধ্বংস করেছে সরকার : মির্জা ফখরুল বেনজিরের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ কুয়েতে শ্রমিক আবাসন ভবনে আগুন, নিহত ৪১ এমপি আনার হত্যার তদন্ত সঠিক পথেই এগুচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. ইউনূসকে বিচারের নামে হয়রানি করা হচ্ছে: ব্যারিস্টার খোকন বিচার প্রক্রিয়া সম্পর্কে ড. ইউনূসের বক্তব্য অসত্য: আইনমন্ত্রী আদালতে খাঁচার ভেতর দাঁড়িয়ে থাকা অপমানজনক: ড. ইউনূস মূল্যস্ফীতির হার সাড়ে ৬ শতাংশে নামানো অবাস্তব: সিপিডি বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে বিমান বাহিনীর প্রধানের শ্রদ্ধা পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি অভিযানে ৬ ফিলিস্তিনি নিহত সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ দেশের তালিকায় তৃতীয় বাংলাদেশ

দুর্নীতি তদন্তের মধ্যেই স্বামীকে একই দপ্তরে বদলিতে তৎপর মাউশি ঢাকার ডিডি’র পিএ রাবেয়া

বৃত্তান্ত প্রতিবেদন
আপডেট : এপ্রিল ২৭, ২০২৩

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি), ঢাকা অঞ্চলের উপপরিচালক এসএম আব্দুল খালেক ও তার পিএ রাবেয়া সুলতানার বিরুদ্ধে নানান অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তাধীন অবস্থাতেই রাবেয়ার স্বামী মোহাম্মদপুর সরকারি কলেজ, ঢাকার সহকারী লাইবেরিয়ান মোঃ নুরুল ইসলামকে মাউশি ঢাকা অঞ্চলের হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা হিসেবে বদলির প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানিয়েছে, অনৈতিক সুবিধার বিনিময়ে মাউশি’র সাবেক কর্মচারি নেতা খুররম মোল্লার সহযোগিতায় উপপরিচালক খালেকের পিএ রাবেয়া নিজের স্বামীকেও একই দপ্তরে বদলি করে আনার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। এজন্য তিনি ইতোমধ্যে মাউশি অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের দপ্তরে সরাসরি আবেদনও জমা করেছেন। যেনো মাউশি ঢাকা অঞ্চলের অন্য কর্মকর্তা ও কর্মচারিরা রাবেয়া ও তার সহযোগীদের অনিয়ম ও দুর্নীতি নিয়ে মুখ খুলতে না পারেন। একইসঙ্গে দপ্তরটিকে তারা ঘুষ ও দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত করতে পারেন।

সূত্র জানায়, নুরুল ইসলাম সহকারী লাইবেরিয়ান হিসেবে বর্তমানে মোহাম্মদপুর সরকারি কলেজে চাকরি করছেন। রাবেয়ার ইচ্ছায় তাকে মাউশি ঢাকা অঞ্চলেরহিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা পদে  বদলির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

সূত্র জানায়, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা মহাপরিচালকের সামনে এ সপ্তাহেই প্রস্তাবনাটি উপস্থাপন করা হতে পারে। মহাপরিচালকের চূড়ান্ত অনুমোদন পেলেই এ সপ্তাহেই নূরুল ইসলামকে ঢাকা অঞ্চলের হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা পদে বদলির আদেশ জারি করা হতে পারে। এ নিয়ে খুররম মোল্লার সহযোগিতায় মহাপরিচালকের দপ্তরের একজন কর্মকর্তার মাধ্যমে রাবেয়া জোর তদবির চালাচ্ছেন বলে জানা গেছে।

সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পর সম্প্রতি মাউশি মহাপরিচালক নেহাল আহমেদের নির্দেশে ঢাকা অঞ্চলের উপপরিচালক এসএম আব্দুল খালেক ও তার পিএ রাবেয়ার সুলতানার বিরুদ্ধে নানান অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগের তদন্ত শুরু হয়েছে। চলতি এপ্রিল মাসের ‍তৃতীয় সপ্তাহেই এ সংক্রান্ত তদন্ত কমিটির মুখোমুখি হন ওই দুইজন।

মাউশি ঢাকা অঞ্চলের কর্মকর্তা ও কর্মচারিদের অভিযোগ, এ অবস্থায় রাবেয়া সুলতানার স্বামী নূরুলকেও একই দপ্তরে বদলি করা হলে মাউশি ঢাকা অঞ্চলের দপ্তরটি দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হবে। এই ত্রয়ীর দাপটে সেখানে কোন কর্মকর্তা বা কর্মচারি কোন কথাও বলতে পারবেন না।

এ বিষয়ে উপপরিচালক এসএম আব্দুল খালেক ও রাবেয়া সুলতানা কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

সূত্র জানায়, ঢাকা বিভাগীয় আঞ্চলিক কার্যালয়সহ মাউশি’র নয়টি আঞ্চলিক কার্যালয়ে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের (মান্থলি পেমেন্ট অর্ডার) এমপিওভুক্তির কাজে বেপরোয়া ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দিতে অধিদপ্তরের মহাপরিচালক নেহাল আহমেদ নির্দেশ দেন। এজন্য মাউশি’র পরিচালক অধ্যাপক মো. আামির হোসেনের নেতৃত্বে একটি তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

গত ১১ এপ্রিল মাউশি ঢাকা অঞ্চলের মিরপুর দারুস সালাম রোডের অফিসে তদন্ত কমিটি সংশ্লিষ্ট সকলের শুনানি গ্রহণ করেন।

এতে উপপরিচালক খালেক, তার পিএ রাবেয়া সুলতানাসহ সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারি, ঢাকার জেলা শিক্ষা অফিসার, মিরপুরের থানা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এবং জেলা ও থানা শিক্ষা অফিসের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারি, সাবেক কর্মী সালমা বেগম, নারায়ণগঞ্জের পাগলা হাই স্কুলের দুই সহকারী শিক্ষা তারিকুল ইসলাম ও মশিউর রহমানের শুনানি গ্রহণ করা হয়।  তবে কমিটি এক মাসেরও বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও তদন্ত রিপোর্ট জমা দিতে পারেনি।

মাউশি’র পরিচালক অধ্যাপক মো. আামির হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত তদন্ত কমিটি যেনো বিপক্ষে কোন প্রতিবেদন দিতে না পারে, সে প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করতে মাউশি’র ঢাকা আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপপরিচালক (ডিডি) এসএম আবদুল খালেক ও তার পিএ রাবেয়া সূলতানাসহ অন্য কার্যালয়ের ডিডিরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

একইসঙ্গে মাউশি’র ঢাকা বিভাগীয় আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপ-পরিচালক (ডিডি) আবদুল খালেকের পিএ রাবেয়া সুলতানার বিরুদ্ধে সুবিধা নিয়ে ঢাকা মহানগরীর বাংলাদেশ ব্যাংক আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে পাঁচজন শিক্ষককে অবৈধভাবে এমপিওভূক্তির অভিযোগ তদন্ত করে সাতদিনের মধ্যে প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশও ওই ডিডি’র দপ্তরে ফাইলবন্দি হয়ে পড়ে রয়েছে।


এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ