বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:২৫ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
পাকিস্তান-নিউজিল্যান্ডের উভয়েরই লক্ষ্য সিরিজে এগিয়ে যাওয়া মিয়ানমার থেকে ফিরলেন ১৭৩ বাংলাদেশি আপিল বিভাগে ৩ বিচারপতি নিয়োগ মন্ত্রী-এমপির স্বজনরা প্রার্থিতা প্রত্যাহার না করলে ব্যবস্থা: কাদের ফিলিপাইনে তাপমাত্রা ৪৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস উত্তর কোরীয় প্রতিনিধি দলের ইরান সফর খালেদা জিয়ার গ্যাটকো মামলায় চার্জশুনানি ২৫ জুন অফশোর ব্যাংকিংয়ে সুদের ওপর কর প্রত্যাহার রানা প্লাজায় নিহতদের স্মরণ দেশের হজ ব্যবস্থাপনা বিশ্বের মধ্যে স্মার্ট হবে: ধর্মমন্ত্রী থাইল্যান্ডে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী তাপদাহের মধ্যে গ্রামে ১০৪৯ মেগাওয়াট লোডশেডিং ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিলো জ্যামাইকা সুইজারল্যান্ডে জব্দ রয়েছে রাশিয়ার ১ হাজার ৪শ’ কোটি ডলার জিবুতি উপকূলে অভিবাসীবাহী নৌকাডুবিতে নিহত ৩৩

দেশের উত্তরাঞ্চলে জ্বালানি তেলের তীব্র সংকট

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : মে ৮, ২০২২
জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি: ব্যাখ্যা চেয়েছে মন্ত্রিসভা

দেশের বিভিন্ন স্থানে জ্বালানি তেলের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। রাজশাহী, কুড়িগ্রাম-নীলফামারীসহ উত্তরাঞ্চলের বেশ কয়েকটি জেলায় একই চিত্র। সুনামগঞ্জেও চাহিদা অনুযায়ী গ্রাহকদের জ্বালানি তেল দিতে পারছে না পেট্রোল পাম্পগুলো। পাম্প কর্তৃপক্ষের দাবি, জ্বালানি তেল সরবরাহ বন্ধ রেখেছে ডিপোগুলো। ফলে এরইমধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে অনেকগুলো পেট্রোল পাম্প। সমস্যা সমাধানে কর্তৃপক্ষকে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার দাবি ভুক্তোভোগীদের।

কুড়িগ্রাম পেট্রোল পাম্প সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নজরুল ইসলাম জানান, ঈদ ঘিরে জেলায় পরিবহন সংখ্যা বেড়েছে। তারওপর উত্তরবঙ্গে জ্বালানি তেল ব্যবহারের বিকল্প না থাকায় সঙ্কটের মাত্রা এখন ঊর্ধ্বমুখী।

একই দশা নীলফামারীর পেট্রোল পাম্পগুলোতেও। জ্বালানী তেলের খোঁজে প্রতিদিনই এক পাম্প থেকে আরেক পাম্পে ছুটছেন যানবাহন চালকরা। ব্যবসায়ীরা বলছেন, পেট্রোল-অকটেন সরবরাহ বন্ধ রেখেছে ডিপোগুলো। ফলে তীব্র হয়েছে সঙ্কট। সমস্যা সমাধানে জেলা ভিত্তিক তেল বন্টনের দাবি তাদের। নীলফামারীর ৬ উপজেলায় পাম্প রয়েছে ৩৬টি। পাম্প কর্তপক্ষের দাবি, এক লিটারও মজুদ নেই তাদের।

রাজশাহীতে জ্বালানি তেলের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে পেট্রোল ও অকটেন মিলছে না বেশিরভাগ পাম্পেই।

রাজশাহী জেলা পেট্রোল পাম্প অ্যান্ড ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন বলছে, জেলায় ৪৮টি পেট্রোল পাম্প রয়েছে। পাম্পগুলোতে পর্যাপ্ত তেল আসছে না গত তিন মাস থেকেই। ঈদের ছুটির কারণে এই সংকট আরও বড় আকার ধারণ করেছে। ফলে বেশ কিছু পাম্প তেল শূন্যও হয়ে পড়েছে।

রোববার (৮ মে) সকাল থেকে রাজশাহী নগরীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, রাজশাহী জেলা ও মহানগরের অধিকাংশ এলাকাতেই পাম্পে পেট্রোল ও অকটেন নেই। কিছু কিছু পাম্পে শুধুমাত্র ডিজেল আছে। তবে, সেগুলো চাহিদার তুলনায় কম হবার কারণে অল্প পরিমাণে বিক্রি করছে তেল। এতে মোটরসাইকেল ও প্রাইভেট গাড়ি মালিকরা পড়ছেন বিড়ম্বনায়।

বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম ডিলারস ডিস্ট্রিবিউটরস এজেন্ট অ্যান্ড পেট্রোলিয়াম ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন রাজশাহী জেলার সভাপতি মনিমুল হক বলেন, রাজশাহীতে তেলের সংকট আছে। মেইন সংকট গত তিন মাস থেকেই। আজ এই পাম্প পাচ্ছে তো কাল ওই পাম্প পাচ্ছে। রাজশাহীর সবগুলোরই সংকট আছে। এবার বেশি সংকট হয়েছে ৯ দিনের ছুটিতে। সংকট কেটে যাবে কিনা সেই বিষয়ে আমরা বলতে পারবো না। বিপিসি বলতে পারবে।

তবে, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের উপ-মহাব্যবস্থাপক (বণ্টন ও বিপণন) মুহাম্মদ মোরশেদ হোসাইন আজাদ বলেন, আমাদের কোনো সংকট নেই। এখনও সারা বাংলাদেশে যে মুজুদ আছে ব্যারেল স্টক বাদ দিয়ে ১২ দিন চলে যাবে। আমাদের পার্বতীপুরে পেট্রোল ও আকটেন অ্যাভেলেবল আছে তাহলে তারা কেন উত্তোলন করে নি? হয়তো ব্যাংকে টাকা সট থাকতে পারে। আপনি তাদের জিজ্ঞাসা করেন যে কোনো ডিপোতে গিয়ে তেল পাননি।


এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ