মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:০৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
দেশের সব জায়গায় কাল থেকে সতর্ক পাহারায় থাকবে আ. লীগ: সেতুমন্ত্রী রাজধানীর নতুন যে জায়গায় সমাবেশের অনুমতি চেয়েছে বিএনপি হলো না ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ভোট চুরি করলে জনগণ ছেড়ে দেয় না : প্রধানমন্ত্রী রাস্তায় পেতে রাখা বোমার বিস্ফোরণে ৭ জন নিহত বিধ্বস্ত পাওয়ার গ্রিড পুনরুদ্ধারের চেষ্টা চালাচ্ছে ইউক্রেন পঞ্চগড়ে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রার রেকর্ড ছাত্রলীগের সম্মেলন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী জরুরি ভিত্তিতে কর্মী নেবে রাশিয়া, লাগবে না ভাড়া বাংলাদেশ বিনিয়োগের সবচেয়ে আকর্ষণীয় জায়গা- প্রধানমন্ত্রী নতুন বছরের ‘শুরুতেই’ দ্বিতীয় মেয়াদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন বাইডেন গাইবান্ধা-৫ আসনের উপনির্বাচন ৪ জানুয়ারি ব্রাজিলের জয় নিয়ে যা বললেন বুবলী অসুস্থ পেলেকে জয় উৎসর্গ করলেন নেইমাররা ফেরি চলাচল ব্যাহত দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে

মিয়ানমারে সামরিক শাসকদের হাতে ৩০ জন নিহত

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : ডিসেম্বর ২৫, ২০২১

বৃত্তান্ত ডেস্ক: মিয়ানমারে দ্বন্দ্ব সংঘাতে বিধ্বস্ত কায়া রাজ্যে নারী ও শিশুসহ ৩০ জনেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন। মরদেহগুলো পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে বলে স্থানীয় মানবাধিকার গোষ্ঠী, গণমাধ্যম ও একজন বাসিন্দা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কারেনি মানবাধিকার সংগঠনের বরাত দিয়ে শনিবার আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়, শনিবার হাপ্রুসো শহরের মো সো গ্রামের কাছে মিয়ানমারের সামরিক শাসকদের হাতে নিহত হয়েছেন অভ্যন্তরীণ বাস্তুচ্যুত মানুষেরা।

নিহতদের মধ্যে রয়েছেন নারী শিশুসহ অনেকেই। এমন অমানবিক ও নৃশংস হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়েছে সংগঠনটি।

মিয়ানমারের সেনাবাহিনী জানিয়েছে, বিরোধী গোষ্ঠীর কিছু সশস্ত্র সদস্যকে গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

কারেনি ন্যাশনালিটিজ ডিফেন্স ফোর্স হচ্ছে সামরিক জান্তা বিরোধিতাকারী বেশ কয়েকটি বেসামরিক মিলিশিয়ার মধ্যে অন্যতম। ফোর্সটির দাবি নিহতরা তাদের দলের সদস্য নয়। বরং সাধারণ মানুষ। তাদের একজন কমান্ডার নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, এমন হত্যাকাণ্ডে আমরা হতবাক। কারণ মরদেহগুলো শিশু, নারী ও বৃদ্ধদের।

স্থানীয় এক বাসিন্দা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানান, শুক্রবার রাতে তিনি গোলাগুলির শব্দ শুনেছেন। তবে সংঘর্ষ চলমান থাকায় ঘটনাস্থলে যাননি। তবে সকালে সেখানে গিয়ে তিনি নারী, শিশুসহ অনেক পোড়া মরদেহ দেখতে পান।

গত ১ ফেব্রুয়ারি অভ্যুত্থানের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক সরকারকে উৎখাত করে ক্ষমতা দখল করে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী। তবে দেশটির সিংহভাগ জনগণ বিষয়টি মেনে নেয়নি। রাস্তায় বিক্ষোভ, সরকারি কাজকর্ম বয়কটসহ সশস্ত্র বিদ্রোহের মাধ্যমে জান্তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাচ্ছে তারা।

অভুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে এ পর্যন্ত ১,৩০০’র বেশি মানুষ নিহত এবং ১১ হাজারের বেশি বন্দি হয়েছেন বলে জানিয়েছে স্থানীয় পর্যবেক্ষক সংগঠন অ্যাসিসট্যান্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিক্যাল প্রিজনার্স।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ