সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ঈদের পর রেমিট্যান্সে ফিরে এসেছে গতি সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বাংলাদেশ সর্বদা প্রস্তুত: প্রধানমন্ত্রী দুর্দান্ত মেসিতে জয় পেল মায়ামি দুঃসংবাদ পেল ধোনি-মুস্তাফিজদের চেন্নাই বিএনপির নেতিবাচক কর্মকাণ্ডে জনগণের আগ্রহ নেই : ওবায়দুল কাদের বিএনপিনেতা হাবিবুর রহমান হাবিব জামিনে মুক্ত গরমে হাসপাতালগুলোকে যে নির্দেশ দিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী বোরো মৌসুমে ধান-চাল সংগ্রহের মূল্য নির্ধারণ মিয়ানমার নৌবাহিনীর গুলিতে বাংলাদেশি ২ জেলে গুলিবিদ্ধ ‘কাতার আমিরের সফরে ছয়টি চুক্তি ও পাঁচটি সমঝোতা স্মারক সই হবে’ পেনশন স্কিম, প্রত্যাশার চেয়েও গ্রাহক কম ইসরায়েলে নেতানিয়াহু সরকারের বিরুদ্ধে হাজারো মানুষের বিক্ষোভ ইসরায়েল–ইউক্রেনকে সহায়তায় যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্টে বিল পাস ইসরায়েলি সেনাদের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞার পরিকল্পনা পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি হামলা, ১৪ ফিলিস্তিনি নিহত

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্থিরতা সৃষ্টি করতে মিয়ানমার থেকে অস্ত্র আসে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : অক্টোবর ৩, ২০২১

বৃত্তান্ত প্রতিবেদক: কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে পরিস্থিতি অস্থির করতে মিয়ানমার থেকে অস্ত্র আসে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন তবে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো আছে। আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় যথেষ্ট প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

রবিবার সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আসন্ন দুর্গাপূজা উপলক্ষে পূজামণ্ডপগুলোতে নিরাপত্তা, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ ও প্রাসঙ্গিক বিষয়ে  সভা শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী যথেষ্ট পরিমাণেই রয়েছে। পরিস্থিতিও যথেষ্ট ভালো। মিয়ানমার থেকে পরিস্থিতি অস্থির করতে এর আগেও অস্ত্র এসেছে। বিভিন্ন গ্রুপে মারামারিও আপনারা দেখেছেন।

যে নেতাকে হত্যা করা হয়েছে তিনি রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরাতে সোচ্চার ছিলেন। আমরা তদন্ত করে এর মূল কারণ বের করতে কাজ করছি। যারা এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত বা বিদেশি কোন সংস্থা এর সঙ্গে জড়িত কিনা তা তদন্তের মাধ্যমে বেড়িয়ে আসবে। শিগগিরই তাদের আইনের আওতায় আনতে পারবো বলে মনে করছি, বলেন তিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি শিথিল হয়নি। এর চতুর্দিকে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়ার কাজ চলছে। এটা কিছুদিনের মধ্যে শেষ হবে। সেখানে আমরা ওয়াচ টাওয়ার তৈরি করছি সেটাও শিগগিরই শেষ হবে। ১১ লাখ রোহিঙ্গা দুইটি থানার কিছু অংশে বাস করছে। বিশাল এ জনগোষ্ঠীকে নিয়ন্ত্রণ করা সহজ কাজ নয়।


এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ