শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ১১:০০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
দেশবাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা প্রধানমন্ত্রীর চৈত্র সংক্রান্তি শনিবার আওয়ামী লীগ পুলিশ লীগে পরিণত: মির্জা ফখরুল `বিএনপি ককটেল পার্টি করেনি, ইফতার পার্টি করেছে’ ইরান-ইসরায়েলকে সংযত থাকার আহ্বান রাশিয়াসহ পরাশক্তিগুলোর যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হওয়ার বার্তা কিমের দুই ম্যাচ নিষিদ্ধ রোনালদো ৪ জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় ১০ জনের মৃত্যু ভারতীয় পণ্য বর্জন, বিএনপির রাজনৈতিক কর্মসূচী নয়: খসরু সর্বোচ্চ গোলদাতার লড়াইয়ে চলছে টান টান উত্তেজনা আটলান্টার কাছে বড় ব্যবধানে হারলো লিভারপুল রেকর্ড ১৭টি `ডাক` ইনিংস ম্যাক্সওয়েলের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়ে ২০ বিলিয়ন ডলারের উপরে পার্বত্য চট্টগ্রামে বৈসাবী উৎসব শুরু কমেনি মুরগির দাম, বেড়েছে সবজির

৩০ বছরে দেশে সবচেয়ে কম ঠান্ডার ৩১ ডিসেম্বর

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : ডিসেম্বর ৩১, ২০২১

 

৩০ বছর ধরে দেশে ৩১ ডিসেম্বর সর্বনিম্ন স্বাভাবিক তাপমাত্রা যা ছিল, তার চেয়ে আজ শুক্রবার অঞ্চলভেদে ১ থেকে ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি আছে। এর মধ্যে ঢাকায় সবচেয়ে বেশি ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ ছাড়া দেশের বিভিন্ন এলাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৮ দশমিক ৪ থেকে ১৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে রয়েছে। আবহাওয়া অধিদপ্তর এমনটাই জানিয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক প্রথম আলোকে বলেন, গত ৩০ বছরের ৩১ ডিসেম্বরের তুলনায় আজ অঞ্চলভেদে তাপমাত্রা ১ থেকে ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি।

ঢাকায় আজ শীত কিছুটা কম। এর কারণ ব্যাখ্যা করে মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক বলেন, গড়ে বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেশি থাকা, বাতাসের গতিবেগ প্রতি ঘণ্টায় কম থাকা এবং সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রার মধ্যে ফারাক বেশি থাকায় ঢাকায় শীত কম অনুভূত হচ্ছে। সামনের এক সপ্তাহে এ অবস্থার পরিবর্তন হয়ে ঢাকায় শীত অনুভূত হতে পারে।

বিজ্ঞাপন

আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুসারে, দেশে আজ সর্বনিম্ন তাপমাত্রা পঞ্চগড়ের সর্ব উত্তরের উপজেলা তেঁতুলিয়ায়—৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ফেনী জেলা ও সীতাকুণ্ড উপজেলায়। সর্বনিম্ন তাপমাত্রার মধ্যে কক্সবাজারে সবচেয়ে বেশি ১৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৬ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২৬ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে হিমালয়ের পাদদেশ পেরিয়ে বাতাস বাংলাদেশে প্রবেশ করছে বলে রংপুর, রাজশাহী ও ময়মনসিংহে এবং উত্তর-পূর্ব দিক থেকে মেঘালয়, নাগাল্যান্ড, অরুণাচল পেরিয়ে বাতাস বাংলাদেশে প্রবেশ করায় সিলেট অঞ্চলে শীতের তীব্রতা বেশি।

আবহাওয়াবিদ মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক আরও জানান, ঢাকায় বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ সকালে ছিল ৮১ শতাংশ এবং দুপুর ১২টার পর ৭২ শতাংশ। যেসব অঞ্চলে শীত বেশি অনুভূত হচ্ছে, অর্থাৎ সিলেট, রাজশাহী, রংপুর, ময়মনসিংহে বাতাসে গড়ে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ ৬০ থেকে ৪০ শতাংশের মধ্যে ওঠানামা করছে।

সেখানে বাতাসের গতিবেগ গড়ে প্রতি ঘণ্টায় ১৫ থেকে ২০ কিলোমিটার। ঢাকায় বাতাসের গতিবেগ গড়ে প্রতি ঘণ্টায় ৫ থেকে ১০ কিলোমিটারের মধ্যে ওঠানামা করছে। এ ছাড়া ঢাকায় সকালে কোনো কুয়াশা ছিল না, সূর্যকিরণ সকাল সাড়ে ছয়টা থেকে নিরবচ্ছিন্নভাবে বিকেল পর্যন্ত অবস্থান করছে বলেও শীত কম অনুভূত হচ্ছে। ঢাকার নগরায়ণও শীত কম লাগার অন্যতম কারণ।

 

নতুন বছরে শীত কেমন হবে, সে আভাস দিয়ে আবহাওয়াবিদ মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক জানান, আগামীকাল শনিবার থেকে ঢাকায় সপ্তাহজুড়ে একটু একটু করে শীত বাড়বে। এ সময়ে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১২ থেকে ১৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে ওঠানামা করবে। এ ছাড়া রংপুর বিভাগের পঞ্চগড় ও কুড়িগ্রাম জেলায় মৃদু শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত থাকবে এবং এ সপ্তাহে পার্শ্ববর্তী জেলাগুলোতে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ হতে পারে।


এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ