শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৫৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
দেশবাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা প্রধানমন্ত্রীর চৈত্র সংক্রান্তি শনিবার আওয়ামী লীগ পুলিশ লীগে পরিণত: মির্জা ফখরুল `বিএনপি ককটেল পার্টি করেনি, ইফতার পার্টি করেছে’ ইরান-ইসরায়েলকে সংযত থাকার আহ্বান রাশিয়াসহ পরাশক্তিগুলোর যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হওয়ার বার্তা কিমের দুই ম্যাচ নিষিদ্ধ রোনালদো ৪ জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় ১০ জনের মৃত্যু ভারতীয় পণ্য বর্জন, বিএনপির রাজনৈতিক কর্মসূচী নয়: খসরু সর্বোচ্চ গোলদাতার লড়াইয়ে চলছে টান টান উত্তেজনা আটলান্টার কাছে বড় ব্যবধানে হারলো লিভারপুল রেকর্ড ১৭টি `ডাক` ইনিংস ম্যাক্সওয়েলের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়ে ২০ বিলিয়ন ডলারের উপরে পার্বত্য চট্টগ্রামে বৈসাবী উৎসব শুরু কমেনি মুরগির দাম, বেড়েছে সবজির

স্কুল ব্যাংকিংয়ে শিক্ষার্থীদের হিসাব খোলা হয়েছে ২৮ লাখ

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : এপ্রিল ৭, ২০২২
স্কুল ব্যাংকিংয়ে শিক্ষার্থীদের হিসাব খোলা হয়েছে ২৮ লাখ

স্কুল থেকেই শিক্ষার্থীদের সঞ্চয়ের মনোভাব গড়ে তোলার লক্ষ্যে স্কুল ব্যাংকিং কার্যক্রমের উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর ফলে প্রতিদিনই বাড়ছে স্কুল ব্যাংকিংয়ের অ্যাকাউন্টের সংখ্যা ও সঞ্চয় স্থিতির পরিমান। স্কুল ব্যাংকিং শুরু হওয়ার ১০ বছরের ব্যবধানে অ্যাকাউন্ট সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৮ লাখ। একই সময়ে সঞ্চয় স্থিতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ২০৫ কোটি টাকার বেশি।
২০১১ সালে স্কুল ব্যাংকিং হিসাব খোলা হয় ২৯ হাজার ৮০টি। এরপর ২০১২ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত স্কুল ব্যাংকিংয়ের আওতায় দেশের ব্যাংকগুলোয় মোট ১ লাখ ৩২ হাজার ৫৩৭টি হিসাব খোলা হয়। ওই সময় হিসাবগুলোয় মোট সঞ্চয়ের পরিমান ছিলো ৯৬ কোটি ৫১ লাখ টাকা।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হালনাগাদ তথ্য বলছে, ২০২১ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত স্কুল ব্যাংকিংয়ে শিক্ষার্থীদের হিসাব খোলা হয়েছে ২৮ লাখ ৬৬ হাজার ৮৭৩টি। আর এতে শিক্ষার্থীদের আমানতের পরিমান দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ২০৫ কোটি টাকার বেশি। এরমধ্যে ছেলে শিক্ষার্থীদের আছে ১ হাজার ২০২ কোটি ৪৩ লাখ টাকা। আর মেয়েদের ১ হাজার ৩ কোটি ৩৬ লাখ টাকা। যার মধ্যে ৫২ শতাংশ হিসাব শহরাঞ্চলে এবং ৪৮ শতাংশ গ্রামাঞ্চলে। এ সময়ে গ্রামীণ পর্যায়ে অক্টোবর-ডিসেম্বর প্রান্তিকে হিসাব বৃদ্ধি পেয়েছে ১ দশমিক ২৩ শতাংশ। তবে শহরে ৬ দশমিক ০৯ শতাংশ কমেছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, করোনা মহামারির কারণে ২০২০ সালের মার্চ মাসের পর আর কোনো কনফারেন্স হয়নি। পাশাপাশি গত দুই বছরে ১৮ বছর অতিক্রম করেছে অনেক শিক্ষার্থী। এছাড়াও মহামারির অভিঘাতে অনেক পরিবারের উপার্জন কমে যাওয়াও স্কুল ব্যাংকিং হিসাবে এর একটি বড় প্রভাব পড়েছে। যে কারণে শহরের স্কুলগুলোতে ব্যাংকিং কমলেও গ্রামে বেড়েছে।

২০২১ সালে স্কুল ব্যাংকিং হিসাব ও আমানতের দিক থেকে এগিয়ে রয়েছে ঢাকা বিভাগ। মোট হিসাব নম্বরের ২৫ দশমিক ৭৮ শতাংশ এই বিভাগে। যা মোট আমানতের ৪৪ দশমিক ৪০ শতাংশ।

এছাড়া চট্টগ্রামে হিসাব রয়েছে ২১ দশমিক ১৬ শতাংশ যার হিসাব সংখ্যা (৬ লাখ ৬ হাজার ৭৪১টি) ও আমানত রয়েছে ২৩ দশমিক ০৪ শতাংশ যার টাকার পরিমান (৫০৮ কোটি ২৮ লাখ)।

একই সময়ে রাজশাহী বিভাগে শিক্ষার্থীদের হিসাব ১৪ দশমিক ০০ শতাংশ যার সংখ্যা (৪ লাখ ১ হাজার ২৭২টি) এর আমানতের পরিমান ৮ দশমিক ২৮ শতাংশ যার টাকার পরিমান (১৮২ কোটি ১৪ লাখ টাকা)।

এছাড়া খুলনা, বরিশাল, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহের হিসাব যথাক্রমে ১০.৭৭, ৫.৩৭, ৯.১৯, ৭.৯০ ও ৫.৮৪ শতাংশ। যার টাকার পরিমাণ যথাক্রমে ৭.৪৪, ৩.৪৯, ৫.৯৪, ৪.১৬, ৩.২৫ শতাংশ।

জানা যায়, স্কুল ব্যাংকিংয়ে ৫৪ শতাংশ ছেলে ও ৪৬ শতাংশ মেয়ে শিক্ষার্থীর অ্যাকাউন্ট রয়েছে। আমানতের দিক থেকে ৫৪ দশমিক ৫১ শতাংশ ছেলে ও ৪৫ দশমিক ৪৯ শতাংশ মেয়ে। এই প্রান্তিকে ছেলে ও মেয়ের হিসাব বৃদ্ধি যথাক্রমে ৩.১২ শতাংশ ও ২.৮৪ শতাংশ। একই সময়ে আমানত বৃদ্ধি পেয়েছে ১.২৯ শতাংশ ও ২.৩১ শতাংশ হারে।

ব্যাংকগুলোর তথ্য অনুযায়ী স্কুল ব্যাংকিংয়ে সবচেয়ে বেশি হিসাব ও আমানত রয়েছে বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে। বেসরকারি ব্যাংকগুলোতে ডিসেম্বর প্রান্তিকে মোট হিসাবের ৬৮ দশমিক ২০ শতাংশ হিসাব রয়েছে। রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক হিসাব রয়েছে ২৬ দশমিক ৫০ শতাংশ। বিশেষায়িত ব্যাংকে হিসাব রয়েছে ৫ দশমিক ২০ শতাংশ এবং বিদেশি বাণিজ্যিক ব্যাংকে হিসাব রয়েছে শূন্য দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ।

স্কুল ব্যাংকিং হিসাবে এগিয়ে পাঁচটি যথাক্রমে প্রথম রয়েছে বেসরকারি ডার্চ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড। যাতে হিসাব রয়েছে ৫ লাখ ৫০ হাজার ৫৩৭ এরপর ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড যার হিসাব সংখ্যা ৩ লাখ ৭৩ হাজার ৩৬০টি, অগ্রণী ব্যাংকে হিসাব সংখ্যা ২ লাখ ৬৩ হাজার ৪১১টি, এশিয়া ব্যাংকে হিসাব সংখ্যা ১ লাখ ৯২ হাজার ৯৬৬টি সর্বশেষ রয়েছে রূপালী ব্যাংক যাদের হিসাব সংখ্যা ১ লাখ ৬৬ হাজার ২৩৬টি।

উল্লেখ্য, স্কুল শিক্ষার্থীদের আধুনিক ব্যাংকিং সুবিধা ও প্রযুক্তির সঙ্গে পরিচিত করতে ২০১০ সালের ২ নভেম্বর স্কুল ব্যাংকিং সেবা চালু করা হয়। এরপর থেকেই স্কুলপড়ুয়া কোমলমতি শিক্ষার্থীদের সঞ্চয়ে উদ্বুদ্ধ করতে দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো আকর্ষণীয় মুনাফার নানা স্কিম চালু করে। ২০১০ সালে ‘স্কুল ব্যাংকিং’ কার্যক্রম শুরু হলেও শিক্ষার্থীরা টাকা জমা রাখার সুযোগ পায় ২০১১ সাল থেকে। স্কুল ব্যাংকিংয়ের আওতায় ৬ থেকে ১৮ বছরের কম বয়সী আগ্রহী ছাত্র-ছাত্রীরা তাদের মা-বাবা অথবা বৈধ অভিভাবকের সঙ্গে যৌথ নামে অ্যাকাউন্ট খুলতে পারে। মাত্র ১০০ টাকা প্রাথমিক জমা দিয়ে বাংলাদেশের ৫৫টি ব্যাংকের যেকোনো শাখায় এই হিসাব খোলা যাবে।

এই হিসাবে কোনো চার্জ আরোপ করা হবে না। এই কার্যক্রমের আওতায় শিক্ষার্থীরা স্কুলে বেতন-ফি জমা দিতে পারবে। বৃত্তি বা উপবৃত্তির অর্থ স্কুল ব্যাংকিংয়ের আওতায় শিক্ষার্থীদের হিসাবে জমা করা যায়। সেই ক্ষেত্রে বৃত্তি প্রদানকারী সরকার, আধা সরকার বা স্বায়ত্তশাসিত কিংবা বেসরকারি সংস্থাগুলোকে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের সঙ্গে সমঝোতা চুক্তি করতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, স্কুলব্যাংকিং আরও জনপ্রিয় করতে ব্যাংক তফসিলি ব্যাংকগুলোকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়েছে যাতে আরও প্রচার-প্রচারণার মাধ্যমে স্কুল শিক্ষার্থীদের ব্যাংকিং কার্যক্রমে যুক্ত করা যায়। স্কুল ব্যাংকিং বাড়লে শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়া রোধ করা সম্ভব বলেও মনে করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্টরা। সেই সঙ্গে স্কুল ব্যাংকিং হিসাবধারীরা ১৮ বছর অতিক্রম করার পর উদ্যোক্তা হিসেবে আগামীতে গ্রাহক ও ব্যাংকের সম্পর্কের ভিত্তিকে ব্যাংক থেকে লোন পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন।


এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ